Ad Not Available.

Affiliate Marketting

Blogging

Crypto Coins

Bitcoin News

Data Entry

Post Not Found.

Domain and Hosting

Earn for the Real life

Earn From Social Site

Education

Entertainment

Entertainment News:

Forex Zone

Forex Zone Coinbase

Freelancers Zone

Google Adsense

GOOGLE ADSENSE:

Internet

GP Internet Packages

General

Post Not Found.

Offline income

Offline Income

Payment Method

Photography

Photography Photos

Play online Games

PLAY ONLINE GAME

Promotions

Post Not Found.

PTC

Post Not Found.

Revenue Share and invest plan

Post Not Found.

Scam Alert

How to Know Scam
Home মাছ পালন শৌখিন মাছের লাভজনক রঙিন কৃষি শাইখ সিরাজ

শৌখিন মাছের লাভজনক রঙিন কৃষি শাইখ সিরাজ





কৃষকের হাতে হাতে যুগ যুগ ধরে কৃষি এক গভীর বিবর্তনের ভিতর দিয়ে ক্রমেই আধুনিক থেকে আধুনিকতম হয়ে উঠেছে। পরিবর্তন যেমন এসেছে কৃষির উপকরণে, তেমনি পরিবর্তন এসেছে প্রকরণেও। গত ২০ বছরে বাংলাদেশের কৃষিও বদলেছে অনেকখানি। পরিবর্তিত হয়েছে কৃষি ও কৃষকের সংজ্ঞা। শুধু ধান আর পাটে সীমাবদ্ধ নয়, কৃষি এখন বিশাল এক অধ্যায়। এক সময় যে খেতে ধান চাষ হতো, এখন সেখানে চাষ হচ্ছে বিদেশি ফুল। খাবার মাছের পুকুরে চাষ হচ্ছে শৌখিন মাছ। কয়েকদিন আগে ‘হৃদয়ে মাটি ও মানুষ’ অনুষ্ঠানে রংপুরের ব্যবসায়ী মৃদুল রহমানের শৌখিন মাছের প্রজনন খামারের চিত্র তুলে ধরেছিলাম। ওই প্রতিবেদন সারা দেশের দর্শকের মাঝে ব্যাপক সাড়া জাগায়। চ্যানেল আইয়ের কার্যালয়ে অসংখ্য ফোন এসেছে মৃদুল রহমানের ফোন নম্বর চেয়ে। আমাকে উত্তর দিতে হয়েছে প্রচুর সংখ্যক ই-মেইলের।

ইতিহাস বলে রঙিন মাছ বা অ্যাকুরিয়াম ফিশের বাণিজ্যিক চাষের শুরুটা অনেক আগে, চীন দেশে। সেই ৯৬০ খ্রিস্টাব্দে চীনের ‘সং ডিনেস্টি’ পিরিয়ডে ধনীদের মাঝে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে রঙিন মাছ। যার প্রেক্ষিতে চীনে  ৯৬৮-৯৭৫ সালে রঙিন মাছ খাওয়ার ব্যাপারে কড়া নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। ১১৩৬ সালে সম্রাট হিয়াউ সাং গোল্ডফিশের ব্রিডিং শুরু করেন। ১৫১০ সালের দিকে রঙিন মাছের এই শৌখিনতা আর শুধু ধনীদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকেনি। সাধারণ মানুষও অ্যাকুরিয়ামে রঙিন মাছ রাখতে শুরু করে। এরপর এ শৌখিনতা ছড়িয়ে পড়ে জাপানে। ইউরোপের দেশ হিসেবে প্রথম পর্তুগালে রঙিন মাছের চাহিদা দেখা যায় ১৬৯১ সালে। সেখান থেকে ছড়িয়ে পড়ে সারা ইউরোপে। 

একটা জার্নালে মৎস্য অধিদফতরের বরাতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের রঙিন মাছ বা অ্যাকুরিয়াম ফিশের যাত্রা শুরু ১৯৫৩ সালে। কিন্তু এদেশে রঙিন মাছ জনপ্রিয় হতে শুরু করে স্বাধীনতার পরে। আগে বড় বড় হোটেলে অ্যাকুরিয়ামে রঙিন মাছ রাখা হতো। তবে গত শতাব্দীর আশির দশকের মাঝামাঝি থেকে বাংলাদেশের উচ্চবিত্ত থেকে উচ্চ মধ্যবিত্তরাও প্রেমে পড়ে শৌখিন মাছের। মনে আছে ১৯৮৫ সালের দিকে বিটিভির ‘মাটি ও মানুষ’ অনুষ্ঠানে শৌখিন মাছ নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রচার করেছিলাম। তখন থেকেই ধীরে ধীরে রাজধানীর কাঁটাবনে গড়ে উঠছিল শৌখিন মাছের বিশাল বাজার। তারপর সারা দেশেই ছড়িয়ে পড়ে। শুধু উচ্চবিত্তের মধ্যেই আর সীমাবদ্ধ থাকেনি রঙিন মাছের চাহিদা। মধ্যবিত্তের ঘরেও ঢুকে যায় কাচের পাত্রে রাখা সোনালি মাছের বিলাস। তবে এই বিলাসের রসদ ছিল সম্পূর্ণ আমদানি নির্ভর। যাদের হাত ধরে এ দেশে রঙিন মাছের উৎপাদন শুরু তাদের একজন সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার ব্রজবঙ্গ গ্রামের তরুণ উদ্যোক্তা সাইফুল্লাহ গাজী।
এ বছর মার্চে কথা হয় সাইফুল্লাহ গাজীর সঙ্গে। সাইফুল্লাহ গাজীর জীবনের গল্পটাও সিনেমার মতো। ১৯৯৬ সালে এসএসসি পরীক্ষার আগেই অভাবের তাড়নায় ভাগ্যের সন্ধানে নামতে হয়। চলে যান ভারতে। সেখানে এক গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিতে কাজ করেন। একদিন ছুটির দিনে ঘুরতে ঘুরতে দেখতে পান একটা এলাকায় ‘প্রবেশ নিষেধ’ সাইন। কৌতূহল জন্মে তার। কেন সেখানে প্রবেশ করা যাবে না? কী হয় সেখানে? কৌতূহল থেকেই সেখানকার একজনের সঙ্গে গড়ে তোলেন বন্ধুত্ব, হয়ে ওঠে সখ্য। তারপর ভিতরে গিয়ে অবাক বনে যান, সে তো রঙিন মাছের ভুবন! ধীরে ধীরে সেই বন্ধুর কাছ থেকেই শিখে নেন কীভাবে রঙিন মাছ ব্রিড করতে হয়। ১৯৯৯ সালের শেষের দিকে ভারত থেকে ফিরে আসেন দেশে। অভাব তখনো তাড়া করে ফিরছে। ঢাকায় এসে কাজ শুরু করলেন গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিতে। অল্প বেতনের চাকরিতে সংসার চালানো কঠিন। তারপরও বেঁচে থাকার তাগিদে চালিয়ে যেতে থাকলেন জীবিকার সংগ্রাম। ফ্যাক্টরিতে যেতে-আসতে চোখে পড়ে একটি রঙিন মাছের দোকান। রঙিন মাছের নেশা তার মগজে তখনো প্রোথিত। খেয়াল করলেন প্রায়ই দোকানটা বন্ধ থাকে। খোঁজ নিয়ে জানতে পারলেন, মাছ আসে দেশের বাইরে থেকে। মাছ আসতে অনেক সময় লেগে যায়। তাই মাছ না আসলে দোকান বন্ধ থাকে। সাইফুল্লাহ তখন জানালেন, তিনি জানেন রঙিন মাছ থেকে কীভাবে বাচ্চা ফোটায়, জানেন এর প্রজনন প্রক্রিয়া। ২০০৪ সালের কথা। ৬২৫ টাকা পুঁজি করে নেমে গেলেন রঙিন মাছের ভুবনে। গ্রামে ফিরে একটা চৌবাচ্চায় শুরু করলেন রঙিন মাছের ব্রিডিং। সেই রঙিন মাছই রাঙিয়ে দিলো তার জীবন। আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তার। একদশকে ৬২৫ টাকার রঙিন মাছ সংসার খরচ বাদে গিয়ে দাঁড়াল অর্ধকোটিতে। যেন এক সোনার ডিমপাড়া হাঁসের গল্প। অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি। রঙিন মাছ সাইফুল্লাহ গাজীর কাছে সোনার ডিমপাড়া হাঁস।

সাইফুল্লাহ গাজীর শৌখিন মাছের প্রজনন কার্যক্রম এই চৌবাচ্চার মধ্যে সীমাববদ্ধ নেই। এখান থেকে কার্যক্রম পৌঁছে গেছে ২০টি পুকুরে। বড় বড় পুকুরে জাল ফেলছে আর সেই জালে রুই কাতলা মৃগেলের পরিবর্তে উঠছে শৌখিন রঙিন সব মাছ। বড় মনোরম সে দৃশ্য! বলা যায়, অসম্ভবকে সম্ভব করেছেন সাইফুল্লাহ । খাবার মাছের মতোই লালন-পালন করছেন শৌখিন মাছ। যেগুলো খাবার মাছের চেয়ে বহুগুণ দামি।

সাইফুল্লাহ গাজীর ২০টি পুকুরে ২০ প্রজাতির রঙিন মাছের জন্ম ও বিচরণ ক্ষেত্র। সেখানে গড়ে তুলেছেন মাছের হ্যাচারিও। সাইফুল্লাহ চায় তার মতোই ভাগ্য বদলে যাক সব প্রান্ত্মিক মানুষের। তাই শুধু শৌখিন মাছ লালন-পালন করে তার রেণু পোনা তৈরিই করছেন না, জাত নিয়েও চলছে তার নানারকম পরীক্ষা-নিরীক্ষা। বিশেষ করে মাছের রং ও কিছু বৈশিষ্ট্য পরিবর্তন করতেও চালিয়েছেন নানামুখী চেষ্টা। সাইফুল্লাহ গাজী আজ এলাকার মানুষের কাছে সাফল্যের এক উদাহরণ। শৌখিন মাছ উৎপাদনের ক্ষেত্রেও এলাকার মানুষের মুখে মুখে জেগেছে নতুন সাড়া।

সাইফুল্লাহ গাজী সম্প্রতি ১৩তম সিটি ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা পুরস্কারে বছরের শ্রেষ্ঠ ক্ষুদ্র কৃষি উদ্যোক্তার পুরস্কার পেয়েছেন। এই উদ্যোক্তা বলেন, এক সময় বাংলাদেশ বাইরে থেকে রঙিন মাছ আমদানি করত। এখন সরকার ও বিভিন্ন মহল যদি উদ্যোগ নেয় তবে রঙিন মাছ রপ্তানিও সম্ভব।

পাঠক, রঙিন মাছের আন্তর্জাতিক বাজার সম্পর্কে কিছুটা তথ্য আপনাদের জানিয়ে রাখতে চাই। জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ২০০০ সালের ১৮১ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের শৌখিন মাছের বাজার ২০১১ সাল পর্যন্ত বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৭২ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে। একটা পরিসংখ্যানে দেখা যায়, ২০১৩ সালে সিঙ্গাপুর ৫৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের শৌখিন মাছ বিশ্বের প্রায় ৮০টি দেশে রপ্তানি করেছে। ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে শ্রীলঙ্কার কলম্বোতে আয়োজন করা হয়েছিল দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক অর্নামেন্টাল ফিশ ট্রেড অ্যান্ড টেকনিক্যাল কনফারেন্স। পাশের দেশ শ্রীলঙ্কা ও ভারত ঝুঁকেছে এই বিশাল বাজার ধরতে। আমাদেরও পিছিয়ে থাকার সুযোগ নেই।

বাংলাদেশ সব সম্ভবের দেশ। সামগ্রিকভাবে কৃষির এমন কোনো চর্চা নেই, যা এ দেশে সম্ভব নয়। একটু বুদ্ধি করে যেখানে হাত দেওয়া যায় সেখানেই সোনা ফলে। শুধু পরিকল্পিত উদ্যোগ নেওয়ার অপেক্ষা। সাফল্য যেন সবখানেই হাতছানি দিচ্ছে। সাতক্ষীরার সাইফুল্লাহ গাজী অ্যাকুরিয়াম ফিশ বা শৌখিন মাছ উৎপাদনে যে বিস্ময়কর সাফল্যের নজির করেছেন, তা প্রচলিত কিছু নয়, একেবারেই অপ্রচলিত ও উদ্ভাবনী এক উদ্যোগ। এই উদ্যোগকে অনুসরণ করে দেশের বহু বেকার তরুণ খুঁজে নিতে পারে নতুন এক কর্মসংস্থানের ক্ষেত্র। কারণ, বাড়ির আঙিনায় ছোট্ট পরিসরেই একটি হাউস তৈরি করে শৌখিন মাছের খামার গড়ে তোলা সম্ভব। আর এখান থেকেই তা বিসত্মৃত করা সম্ভব বড় পুকুরে। শৌখিন মাছের প্রজনন ও পোনা উৎপাদনে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে বিশাল সাফল্যের দিকে। এই শিল্পের দিকে দৃষ্টি দেওয়া হলে অল্প দিনেই বাইরে থেকে শৌখিন মাছ আর আনার প্রয়োজন পড়বে না, একইভাবে সম্ভব হবে বিদেশে রপ্তানি করাও।

লেখক : মিডিয়া ব্যক্তিত্ব।

shykhs@gmail.com

Tags: শৌখিন মাছের লাভজনক রঙিন কৃষি শাইখ সিরাজ
Please Login To Place a Comment

Login

Advertising


Top Members

Popular Posts

Categories

Science and Technology

Science-Technology

SEO

SEO

Sponsored Post

Cox's B
Saidul Islam Babu

Web Design and Development

wordpress

what is wordpress?

সখিপুর - News Tangail

Saidul Islam Babu - সাইদুল ইসলাম বাবু

BABU Facebook

বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন: Babu 01714-344129

Bitcoin Facebook Group: